আমার একলার আকাশ, তাইতে এতো হিসাব নিকাশ

Share this:

করোনা শুধুই কি ক্ষতি করে গেলো, বহু মানুষের, রাষ্ট্রের, সম্পদের; নাকি দিয়েছেও কাউকে কাউকে কিছু!

আজ ঠায় ঠায় একচল্লিশ দিন ঘরে বসা। সংখ্যাটা বেশ মুল্যবান। জীবনে কাজ শিখে নিজেকে একজন কামলা ঘোষনা দিয়ে দেবার পর একসাথে এতদিন ঘরে থাকার কোন সুযোগই আসেনি এই জীবনে! যাই হোক, বাইরে মানুষ মরছে, রোজকার হিসেব একবার দেখবো না, দেখবো না করেও, সন্ধেবেলা মুখ লুকিয়ে দেখে ফেলি, মুখ লুকাই নিজের কাছ থেকে নিজে। আমার ঘরের পাশে রোজ আটটা বাজলেই একটা সাইরেন বাজে, যেন কোথাও যুদ্ধের দামামা, কেন বাজে ? কারণ জানি না, তবে এই সাইরেন শুনতে পেলেই আমি মৃতের সংখ্যা দেখতে বসি। বেশ খুটিয়ে খুটিয়ে কোন দেশের কজন গেলেন, শাদা নাকি কালো, হিন্দু নাকি মুসলিম, ইহুদি নাকি ক্রিশ্চান, বাচ্চা নাকি বুড়ো, ছেলে নাকি মেয়ে! না অতো খুটিয়ে আর দেখি কই? দেখি আজকে ১৪৫৫+ গেলেন, দেশ ফ্রান্স! এর পরে সকলে জানান, না না এ শুধু হসপিটালের না, এখানকার বৃদ্ধাশ্রম গুলোরও, এ শুধু আজকের না! তা কালকের বা পরশুর লাশগুলো বাসী হয়ে গেল বলে, আজকের হিসাবের সাথে তাকে যোগ করে দিলে বেশ সুবিধা হয় মানুষের মনে! তারা ধরে নেয় আজকে ১৪৫৫+ মরেনি! কিন্তু গত দুই দিনের গড় যে এখানে এসে ৮০০/৯০০ হয়ে যাচ্ছে তাতে মাথা ব্যাথা নেই কারোর। সকলের কথা আজকে তো এতো মরেনি!

এই যে বৃদ্ধাশ্রমের মৃত্যু আলাদা করে গোনা হয় এতে জনমনে বেশ ভাল একটা অনুভুতি দেখি, সকলেই ভেবে নিয়েছেন এরা তো মরবেই, আমি মরবো না! বৃদ্ধ-মানুষ  মরে গেলেই তো ভালো। কি ভালো? জানি না অতো, কিন্তু করোনা এসেছে এতো কঠিন অসুখ, এতে বৃদ্ধরা মরে গেলে আর কি? সরকার কি আর বাঁচাতে পারবে? এদের কি আর চিকিৎসা দিয়ে বাঁচানো যাবে ? মরছে, মরে যাক, মরে বাঁচুক!

যাই হোক, এই যে এতো লাশ, তাতে কি শুধুই মন্দ ব্যাপার! না রাষ্ট্রযন্ত্র বলে যে একটা ব্যাপার আছে, যেখানে আরো নানান পদের হিসাব নিকাশের পরে জনসংখ্যা যার কাছে একটা সংখ্যা শুধু, আর যার নিজস্ব কোন হৃদয় নেই ঈশ্বরের মতন, তার কিন্তু সবটা ক্ষতি নয়! কেনো নয় তাই নিয়ে দু কথা!

এক একজন বৃদ্ধ-মানুষ, এক একজন চলন্ত ইতিহাস, এক একটা পরিবারের হতচ্ছাড়া বটগাছ, এমনি এমনি সংখ্যাটা শুনে বুকে খচ করে উঠে না আর আমাদের! মরবেই তো তাই মরে যাচ্ছে যে! এতো হৃদয়হীন হয়ে গেছি আমরাও রাষ্ট্র-যন্ত্রের মত করে।

তা ধরা যাক এই মুহূর্তে ফ্রান্সে মারা গেছেন ২২০০০+ মানুষ। আমরা চোখ বন্ধ করে ধরে নিতে পারি এর মাঝে ১৫০০০+ মানুষ যারা ষাটোর্ধ অবং নানান ভাবে অসুস্থ্য ছিলেন। সুতরাং সরকার প্রতি মাসে একেবারে নগন্য করে হলেও এই ১৫০০০ মানুষের জন্য মাসে ১০০০ ইউরো করে খরচ করলেও ১৫০০০*১০০০=১৫০০০০০০ ইউরো খরচ করতো প্রতি মাসে ! তাহলে বছরে ১৮ কোটি ইউরো। ধরা যাক এই মানুষ গুলো আরো নিতান্ত ১০ বছর বেঁচে থাকলে সরকারকে এই মানুষদের জন্য খরচ করতে হতো ১৮০ কোটি ইউরো! এই হিসাবটা সর্বনিম্ন হিসাব ধরে একেবারেই আন্দাজ এর মারপ্যাচে করা। তাহলে আমরা দেখি রাষ্ট্রযন্ত্র এক ধাক্কায় এই ক্ষতি থেকে মুক্ত! ক্ষতি বলছি এই কারণে যে এই পরিমাণ অর্থ বরাদ্ধের বিপরীতে এই বয়সের মানুষদের কাছ থেকে সরকারের আর কোন প্রাপ্তি যোগ ছিলো না। সুতরাং যে রাষ্ট্রযন্ত্রকে আমরা ১০০ ভাগ ক্ষতির সম্মুখিন দেখছি সে কিন্তু আসলে ৭০/৮০ ভাগ ক্ষতিতে আছে!

এবার আসা যাক বাদ বাকি মানুষদের কথায়, এই পনেরো হাজারের পরে পরে যারা মারা যাচ্ছেন ধরে নিলাম তারা আরো কম বয়সের সক্ষম মানুষ, কিন্তু তারা কিন্তু আপাত সক্ষম নন। সরকারের কাছে তারাও দায় বৈ আর কিছু নন, এরা সকলেই কোন না কোন ক্ষেত্রে অসুস্থ্য, একেবারেই ফীট যাকে বলে তা নন, এরা সকলেই কোন না কোন রোগ আক্রান্ত, এরা সকলেই এক দিকে আয় করেন অন্য দিকে ঔষধ পথ্য ডাক্তার হাসপাতাল করে সরকারের কাছ থেকে এই সব ক্ষেত্রে ভর্তুকি নেন। সরকার এদের নিয়ে কিন্তু একশো ভাগ খুশী না! এরা তার গুড সোলজার নন!

পশ্চিমা বিশ্বের কাছে এই সংখ্যাতত্ব খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা যেখানে হৃদয় দিয়ে ভালোবাসি সেখানে সরকার-যন্ত্র সংখ্যা দিয়েই ভালোবাসবে। তাতেই ডুববে এবং ভাসবে। এই সংখ্যাগুলোকে এখন যদি আপনি দশের ঘরে গুনিতক দিয়ে গুন করেন। মানে এই পনেরো হাজার যদি কোন ভাবে দেড় লক্ষ হয় তবে সরকারের কোষাগারের সঞ্চয়পত্রের হিসাবটা আপনি নিজেই একটু করে দেখুন আপনার মোবাইলের ক্যালকুলেটর দিয়ে! সেটা অবশ্য অনেক সময় কাজ করে না!

গত দেড় মাসের লকডাউন এর নিয়ম-নীতি না মানার কারণে ফ্রান্সে প্রায় ১ লক্ষ লোককে ফাইন করা হয়েছে। ফাইন এর পরিমান সর্বনিম্ন ১৩৫ ইউরো এখন। সেটা নানান কারণে বেড়ে ১৫০০ ইউরো অব্দি যেতে পারে, আবার একজনকে দুইবার ফাইন করার মতন অবস্থা হলে সেটা ৩৭৫০ ইউরো অব্দি যেতে পারে। এই দন্ডে দন্ডিত যারা তাদের টাকাও উসুল হয়েছে, কারণ ১৫ দিনের মাঝে না দিলে দন্ডের পরিমাণ বাড়বে! এক লক্ষ লোক ১৩৫ ইউরো করে নুন্যতম তবে সরকারের কোষাগারে কত দিলেন? যদিও এই এক লক্ষ লোককে খোঁজে বের করতে ১৭ লক্ষ মানুষকে পথে ঘাটে পুলিশ জেরা করেছে বলছে। যাক এই অর্থ সমাগম সরকার চায়নি! এটা অনাকাঙ্ক্ষিত!

আবার দেখুন এখানে অনাকাঙ্ক্ষিত অনেক কিছুই কিন্তু হলো, যখন একেবারে শুরু শুরুতে এখানে ইলেকশন ছিলো সরকার আমাদের জানালেন ইলেকশন হবে, সকল ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে, আপনারা আসবেন হাতে স্যানিটাইজার মাখবেন ভোট দিবেন। ইলেকশন থামিয়ে দেয়ার ক্ষতি সরকারের পোষাবে না! খুব সুচারু ব্যবস্থা! তো তাই হলো, লোকে বিশ্বাস করলো সরকার ঠিক বলছেন। রাস্তা ঘাটে গিজ গিজ করছে লোকজন, সবাই সরকারকে বিশ্বাস করে ঘর থেকে বের হলো, আসল রোগীর সংখ্যা মৃতের সংখ্যা সব লুকিয়ে রেখে এই ইলেকশন হলো! এর পরে আমরা দেখলাম তার ফলাফল! কি দ্রুত একটা দেশ অসহায়ের মত মৃতের মিছিলে ছাড়িয়ে যেতে থাকলো। যাক শেষাবদি আমেরিকা এসে উদ্ধার করায়, ইউরোপ পিছিয়ে পরেছে অনেকখানি! এখন অনেককেই দেখি আর এইসব বিশ বাইশ হাজারের দিকে তাকাতে অত আগ্রহ পান না!

আচ্ছা আমরা সকলে মিলে আরেকটা হিসাব করি না একটু। এই যে এক একটা লাশ শুইয়ে রেখে তার উপরে আরেকটা লাশ রেখে আমরা কত উচু দালান করতে পারবো? একটা মানুষের কাঁধে আরেকটা মানুষ ধরে বাইশ হাজার মানুষ কত দীর্ঘ লাইন হয়? একটা কফিন এর উপরে আরেকটা কফিন রেখে এই বাইশ হাজার কফিন কত উঁচু হয়? আর যেখানে সংখ্যাটা ২ লাখ ছাড়িয়েছে.. কত উঁচুতে গেছে সেই কফিনের, লাশের, হাতে হাত ধরা কিংবা কাঁধে কাধ মিলানো সারি …

আমাদের অনন্ত কত হিসাব বাকি এখনো… ইতিহাস নিশ্চই এভাবেই হিসাব জানাবে, আমার, আপনার, আমাদের …

 

 

Sagar Kanti DEB is a book lover, reader,  and founder of “Boiyer Jahaj” (transnational book supplying organisation). An enthusiastic person and newcomer of book publishing in Bangladesh, he currently resides in Paris, France.

 

 

More Posts From this Author:

    None Found

Share this:

Leave a Comment

Your email address will not be published.

শুদ্ধস্বর
Translate »
error: Content is protected !!
Scroll to Top